কোমর ব্যথায় সার্জারির পরও প্রত্যাশিত পরিবর্তন আসেনি; অবশেষে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসায় উন্নতি

জনাব আব্দুর রহমান সাহেব, পেশায় একজন মাদ্রাসার শিক্ষক। গত বছরের (২০১৮) রমজান মাসের আগে থেকে তীব্র কোমর ব্যথায় ভুগছিলেন। এক সময় ধীরে ধীরে তার ব্যথা তীব্র থেকে তীব্রতর হতে থাকে। কোমর থেকে ব্যথা পায়ের দিকে ট্রান্সফার হয়ে অবশ অবশ বোধ করা এবং ঝি ঝি ভাব আসা শুরু হয়। সমস্যার সমাধানের জন্য তিনি বিভিন্ন চিকিৎসকের স্বরণাপন্ন হন। বিভিন্ন প্যাথলজিক্যাল এবং রেডিওলজিক্যাল টেস্ট করান। তেমন কোন প্যাথলজিক্যাল সমস্যা না থাকলেও MRI তে তাঁর সিরিয়াস রকমের ডিস্ক প্রোল্যাপসড (L4-L5, L5-S1) ধরা পড়ে। এরপর চিকিৎক তাঁকে বিভিন্ন রকমের পাওয়ারফুল ব্যথার ঔষধ এবং কিছু সাধারণ ব্যায়াম করার পরামর্শ দেন। এ চিকিৎসায় উনার সাময়িক আরোগ্য হলেও। ঔষধ বন্ধ করে দিলে উনার ব্যথা আবার আগের চেয়ে দিন দিন বেড়েই চলেছিল। অবশেষে কোন উপায় না পেয়ে তিনি এদেশের বেশ কয়েকজন প্রখ্যাত নিউরোলজিস্ট এবং অর্থোপেডিক্স চিকিৎসকের স্বরণাপন্ন হন।

এক পর্যায়ে একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসক তাঁকে সার্জারি করার পরামর্শ দেন। এরপর তিনি সেই চিকিৎসকরের পরামর্শ মোতাবেক সার্জারি করার সিদ্ধান্ত নেন। সার্জারি করার পর প্রায় দুই মাস তিনি বেড রেস্ট নেন। এ সময় তাঁঁকে বিশেষ কোন এক্সারসাইজের পরামর্শও দেয়া হয়নি। এতে করে উনার কোমরের মাংসপেশি আরও দুর্বল হয়ে পড়ে। ফলে উনার কোমর ব্যথার সমস্যাটা আগের থেকে কমলেও পুরোপুরি সমাধান হয়নি।

এক পর্যায়ে আব্দুর রহমান সাহেব উনার একজন আত্মীয়ের রেফারেন্সে ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টারের ফিজিওথেরাপি চিকিৎসক ডা. সাইফুল ইসলাম এর শ্বরণাপন্ন হন। উনার পরামর্শমতো ভিশনের আরেকজন ফিজিও আনিসুর রহমান, ইমন চৌধুরী এবং বিবেকানন্দ সরকার এর মাধ্যমে তিনি প্রায় দেড় মাস ফিজিওথরাপি চিকিৎসা নেন। অবশেষে নিয়মিত ম্যানুয়াল ফিজিওথেরাপি চিকিৎসায় উনার সমস্যা আগের থেকে অনেক উন্নতি লাভ করে।

উনার চিকিৎসা সম্পর্কে জানতে চাইলে ফিজিও ডা. সাইফুল ইসলাম বলেন, আমাদের দেশে বেশিরভাগ ব্যথার রোগির ফিজিওথরাপি চিকিৎসার প্রয়োজন হলেও প্রথম অবস্থায় তাঁরা ফিজিওথেরাপি চিকিৎসকের কাছে আসেন না অথবা তাঁদেরকে ফিজিওথেরাপিস্টের কাছে সঠিক সময়ে পাঠানো হয় না। সঠিক সময়ে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা নিলে ডিস্ক প্রোল্যাপসড জনিত কোমর ব্যথা সার্জারি ছাড়াই পুরোপুরিভাবে ভাল করা সম্ভব। কিন্তু সচেতনতার অভাবে আমাদের দেশের রোগিরা সঠিক ফিজিওথরাপি চিকিৎসা পাচ্ছেন না। এছাড়া তিনি বলেন রহমান সাহেবকে আমরা ইলেকট্রোথেরাপি নির্ভর ফিজিওথরাপির পরিবর্তে তাঁকে কিছু এডভান্সড টেকনিকের (Mackenzie, Mulligan, Cyriax, Maitland) মাধ্যমে ফিজিওথেরাপি দেই। ফলে উনি দ্রুত উন্নতি লাভ করেছেন। এদেশে ফিজিওথরাপির নামে এখনো বিভিন্ন স্থানে অদক্ষ পেশাজিবী দিয়ে ফিজিওথেরাপি দেয়া হয়, যার ফলে সাধারণ জনগণ ফিজিওথেরাপি চিকিৎসাকে ভুল বুঝছেন। কিন্তু সঠিক এসেসমেন্ট এবং ভাল এভিডেন্স বেইজড ম্যানুয়াল ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা দিলে কঠিন সমস্যার রোগিদেরও অবস্থান উন্নতি করা সম্ভব। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের আরো সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।