পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ , চিকিৎসা ও তার প্রতিকার

আপনার পিঠে যন্ত্রণাদায়ক ব্যথা অনুভব না করে আপনার সারাদিন চলা প্রায় অসম্ভব বলে মনে হচ্ছে? নাকি কিছু তোলার জন্য বাঁকা হওয়া কি কষ্টকর মনে হয়? আপনি হয়ত দীর্ঘস্থায়ী পিঠের ব্যথায়  ভুগছেন । এই পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ?

যদিও পিঠের  নীচে ব্যথা বা পিঠের উপরের ব্যথা একটি মোটামুটি সাধারণ অবস্থা যেটি বয়স নির্বিশেষে বেশিরভাগ লোকের হয়ে থাকে, বিভিন্ন   কারণে ক্রমাগত পিঠে ব্যথা হতে পারে। লোকেরা সবচেয়ে সাধারণ  যে ব্যথা অনুভব করে তা হল পিঠের নীচে ব্যথা, কাঁধে ব্যথা বা পিছনের পেশীতে স্ট্রেন। যাইহোক পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ, পিঠে ব্যথার কারণ ও চিকিৎসা জানার আগে প্রথমেই জেনে নেওয়া যাক বিভিন্ন ধরনের পিঠের ব্যথা।

Table of Contents

পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ ,পিঠে ব্যথার প্রকারভেদঃ

1) তীব্র পিঠে ব্যথা: পেশী বা লিগামেন্টে আঘাতের ফলে পিঠে হঠাৎ তীক্ষ্ণ বা তীব্র ব্যথা হয়। মেরুদণ্ডে ফাটল বা পেশী ফাইবার ছিঁড়ে যাওয়ার কারণে তীব্র পিঠে ব্যথার জন্ম দিতে পারে। এটি সাধারণত তাৎক্ষণিক চিকিৎসা  ছাড়া নিরাময় হয় না।

2) দীর্ঘস্থায়ী পিঠের ব্যথা: অবিরাম পিঠে ব্যথা থাকা, আপনার পিঠের উপরের অংশে বা নীচের অর্ধেক অংশে যে ব্যথা হয়, তাকে দীর্ঘস্থায়ী বলা যেতে পারে। যদিও এটি ক্রমবর্ধমান বয়সের সাথে আরও সাধারণ, মেরুদণ্ডের আর্থ্রাইটিসের মতো অবস্থাগুলি দীর্ঘস্থায়ী পিঠে ব্যথার একটি প্রধান কারণ।

3) কটিদেশীয় রেডিকুলার ব্যথা: পিঠের কটিদেশীয় রেডিকুলার ব্যথা আরও গুরুতর ধরণের এবং কটিদেশীয় মেরুদণ্ডের স্নায়ু শিকড়গুলিতে আঘাতের কারণে ঘটে।এই ব্যথা অত্যন্ত তীব্র, ছুরিকাঘাতের ব্যথার মতো অনুভূত হয় পিঠের নীচের অংশ থেকে পায়ে, যার ফলে অসাড়তা এবং ঝাঁকুনি হয়।

পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ, পিঠের ব্যথা কীভাবে একটি দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতায় পরিণত হয়?: যেহেতু পিঠের ব্যথা একটি সাধারণ অবস্থা, তাই অনেকে এটিকে অবহেলা করে, ধরে নেয় যে এটি স্বাধীনভাবে নিরাময় করবে। যাইহোক, যদি আপনি সময়মত চিকিৎসা সহায়তা না পান তাহলে দীর্ঘস্থায়ী পিঠের ব্যথা দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতায় রূপান্তরিত হতে পারে।

পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ, পিঠে ব্যথার সূত্রপাতঃ দুর্ঘটনা, তীব্র ক্রীড়া আঘাত, কর্মক্ষেত্রে আঘাত, অনুপযুক্ত উত্তোলন অনুশীলন বা পিঠের দুর্বল পেশীর কারণে হতে পারে। মহিলাদের পিঠের মধ্যে ব্যথার জন্য গর্ভাবস্থাও একটি উল্লেখযোগ্য কারণ। যদিও এই অবস্থার জন্য যথাযথ চিকিৎসার প্রয়োজন হয়, মেরুদণ্ডে টিউমার, আর্থ্রাইটিস এবং  অন্তর্নিহিত কারণগুলিও থাকতে পারে, যার জন্য জরুরি চিকিৎসা সেবা প্রয়োজন।

আরো পড়ূন : ঘাড় ও কাঁধে ব্যথা থেকে মুক্তির উপায়। ঘাড় ব্যথায় ঔষধ নাকি ফিজিওথেরাপি?

পিঠে ব্যথার লক্ষণ কী?

যদিও পিঠে ব্যথা বিভিন্ন কারণে বারবার হতে পারে, যা আপনাকে প্রতিনিয়ত যন্ত্রণা দেয় এবং আপনার দৈনন্দিন কাজে ব্যাঘাত ঘটায়।  শুরুতে লক্ষণগুলি জানা যাক। লক্ষণগুলি সম্পর্কে সতর্ক থাকুন যেমন-

– অসাড়তা
– তীব্র ব্যথা (বিশেষ করে রাতে)
– দুর্বলতা
– পায়ে রেডিয়াল ব্যথা
– অতিরিক্ত ওজন হ্রাস

পিঠে ব্যথার কারণ কি?

পিঠে ব্যথার সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল খেলাধুলার কারণে দুর্ঘটনা এবং আঘাত। যাইহোক,  দীর্ঘক্ষণ বসে থাকা আপনার পিঠকে প্রভাবিত করে এবং পেশী দুর্বল করে। যেহেতু কাঁধ এবং ঘাড়ের পেশী সংযুক্ত,  কাঁধ এবং পিঠের পেশীতে স্ট্রেস ব্যথার আরেকটি কারণ হতে পারে।

যদিও বেশিরভাগ ব্যথা ব্যায়াম মাধ্যমে চলে যায়, তবে উদ্বেগের কারণ যদি দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতার লক্ষণ যেমন মেরুদণ্ডের টিউমার, বাত, সায়াটিকা, স্পন্ডিলাইটিস ইত্যাদি থাকে।

কীভাবে পিঠের ব্যথা প্রতিরোধ করবেন?

কিছু অভ্যাস পরিবর্তন  করা এবং সেগুলিকে আপনার দৈনন্দিন জীবনে অন্তর্ভুক্ত করা আপনাকে আপনার পিঠের ব্যথা কমাতে সাহায্য করবে। যদিও পেশাদার চিকিৎসকের  সহায়তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, এটিও অপরিহার্য যে আপনি সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য উদ্যোগ নিন এবং এইভাবে দীর্ঘস্থায়ী অসুস্থতা এবং ব্যথা এবং যন্ত্রণাকে উপশম করুন। আপনার পিঠের ব্যথা প্রতিরোধ বা কমানোর কিছু উপায় এখানে রয়েছে-

  • ব্যায়াম
  • পেশী শক্তিশালী এবং নমনীয় করুন
  •  ওজন নিয়ন্ত্রণ রাখা
  • ধুমপান ত্যাগ কর
  • ভারী বস্তু উত্তোলন এড়িয়ে চলুন
  • আপনার ভঙ্গি ঠিক করুন
  • বসার সময় আপনার পিঠ ভালো সাপোর্ট দিয়ে আরামদায়ক কিনা তা নিশ্চিত করুন

পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ:

পিঠে ব্যথা বিভিন্ন কারণে হতে পারে, তাই এটা বলা কঠিন যে এটি কোন নির্দিষ্ট রোগের লক্ষণ। যাইহোক, পিঠে ব্যথার কিছু সাধারণ কারণ হল:

পেশী বা টেন্ডন আঘাত পিঠে ব্যথার সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল পেশী বা টেন্ডন আঘাত। এটি হঠাৎ করে বাঁকানো, মোচড়ানো বা ভারী বস্তু উত্তোলনের ফলে হতে পারে।

ডিস্ক প্রল্যাপস ডিস্ক প্রল্যাপস হল একটি অবস্থা যেখানে মেরুদণ্ডের ডিস্ক থেকে অংশগুলি বেরিয়ে আসে এবং স্নায়ুগুলিকে সংকুচিত করে। এটি পিঠে তীব্র ব্যথা এবং অসাড়তা বা শিরশিরে অনুভূতির কারণ হতে পারে।

অস্টিওপোরোসিস: অস্টিওপোরোসিস হল একটি অবস্থা যেখানে হাড় দুর্বল এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়। এটি পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে, বিশেষ করে মেরুদণ্ডের হাড়গুলিতে ফাটল বা ভেঙে গেলে।

ক্যান্সার ক্যান্সার পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে, বিশেষ করে মেরুদণ্ড, লিম্ফ নোড বা অন্যান্য অঙ্গগুলিতে ছড়িয়ে পড়লে।

অন্যান্য চিকিৎসা অবস্থা

পিঠে ব্যথা অন্যান্য চিকিৎসা অবস্থার লক্ষণ হতে পারে, যেমন দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা সিন্ড্রোম, মূত্রনালীর সংক্রমণ বা গুরুতর সংক্রমণ।
যদি আপনার পিঠে ব্যথা হয় যা তীব্র, দীর্ঘস্থায়ী বা অন্যান্য লক্ষণগুলির সাথে মিলে যায়, তাহলে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। ডাক্তার আপনার লক্ষণগুলি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করবেন এবং আপনার শারীরিক পরীক্ষা করবেন। প্রয়োজনে, তারা রক্ত পরীক্ষা, ইমেজিং পরীক্ষা বা অন্যান্য পরীক্ষাও করতে পারেন।

গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা:

গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা হওয়ার কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

এসিড রিফ্লাক্স: এসিড রিফ্লাক্সের কারণে পেটের অ্যাসিড খাদ্যনালীতে ফিরে আসে। এটি পেটের পেশীগুলিকে সংকুচিত করতে পারে, যার ফলে পিঠে ব্যথা হতে পারে।

পিত্তথলির সমস্যা: পিত্তথলিতে পাথর তৈরি হলে এটি পিঠে ব্যথা হতে পারে।

পেট বা অন্ত্রের সংক্রমণ: পেট বা অন্ত্রের সংক্রমণ পেটের ব্যথার পাশাপাশি পিঠে ব্যথাও হতে পারে।

হৃদরোগের সমস্যা: হৃদরোগ, যেমন মায়োকার্ডিয়াল ইনফার্কশন, পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে।
গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা হলে নিম্নলিখিত লক্ষণগুলিও দেখা দিতে পারে:

  • পেটের ব্যথা
  • বমি বা বমি বমি ভাব
  • বুক জ্বালা
  • গ্যাস বা ফাঁপা পেট
  • শ্বাসকষ্ট
  • ঘাম
  • বমি
  • গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা হলে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ। ডাক্তার আপনার লক্ষণগুলি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করবেন এবং আপনার শারীরিক পরীক্ষা করবেন। প্রয়োজনে, তারা রক্ত পরীক্ষা, ইমেজিং পরীক্ষা বা অন্যান্য পরীক্ষাও করতে পারেন।

গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথার চিকিৎসার জন্য ডাক্তার আপনাকে নিম্নলিখিত ওষুধগুলি দিতে পারেন:

এসিড ব্লকার: এসিড ব্লকার পেটের অ্যাসিডের উৎপাদন কমাতে সাহায্য করে।

প্রোটন পাম্প ইনহিবিটর: প্রোটন পাম্প ইনহিবিটর পেটের অ্যাসিডের উৎপাদন আরও বেশি কমাতে সাহায্য করে।

অ্যান্টিবায়োটিক: যদি পিঠে ব্যাথার কারণ কোনও সংক্রমণ হয়, তাহলে ডাক্তার আপনাকে অ্যান্টিবায়োটিক দিতে পারেন।

গ্যাস্ট্রিক থেকে পিঠে ব্যাথা  কিসের লক্ষণ  ও প্রতিরোধের জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি নিতে পারেন:

  • ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন।
  • পর্যাপ্ত পরিমাণে শাকসবজি এবং ফল খান।
  • টক জাতীয় খাবার, চর্বিযুক্ত খাবার, এবং ঝাল জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন।
  • পর্যাপ্ত পরিমাণে জল পান করুন।
  • ধূমপান এবং মদ্যপান এড়িয়ে চলুন।

পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ, পিঠে ব্যথা হলে করণীয়:

ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করুন: ব্যথানাশক ওষুধ, যেমন আইবুপ্রোফেন বা অ্যাসিটামিনোফেন, পিঠে ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

ঠান্ডা বা গরম সেঁক দিন: ঠান্ডা সেঁক প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে, অন্যদিকে গরম সেঁক পেশী শিথিল করতে সাহায্য করে।

স্ট্রেচিং করুন: স্ট্রেচিং পেশীগুলিকে শক্তিশালী এবং নমনীয় করতে সাহায্য করে, যা পিঠে ব্যথা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখুন: সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখা পিঠে ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন: অতিরিক্ত ওজন পিঠের উপর চাপ বাড়ায়, যা পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে।

পর্যাপ্ত ঘুমান: পর্যাপ্ত ঘুম পেশীগুলিকে ঠিকঠাকভাবে মেরামতি করতে সাহায্য করে, যা পিঠে ব্যথা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে।

পিঠে ব্যথার জন্য কিছু সাধারণ ব্যায়াম হল:

কটিদেশীয় পেশী শক্তিশালীকরণ ব্যায়াম: এই ব্যায়ামগুলি আপনার পিঠের নিচের অংশের পেশীগুলিকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। কিছু সাধারণ কটিদেশীয় পেশী শক্তিশালীকরণ ব্যায়াম হল:

কমা ব্যায়াম: আপনার হাঁটু ভাঁজ করে, আপনার পা মেঝেতে স্থাপন করুন। আপনার পিঠ সোজা রাখুন এবং আপনার কোমর থেকে একটি কমা আকৃতি তৈরি করুন। আপনার কোমরটি ভেতরে বা বাইরে না সরিয়ে 10-15 সেকেন্ড ধরে এই অবস্থানে থাকুন।

স্কোয়ট: আপনার পা মেঝেতে স্থাপন করুন, আপনার কাঁধের প্রস্থের মতো। আপনার পিঠ সোজা রাখুন এবং আপনার পায়ের গোড়ালি থেকে আপনার কোমর ভেতরে বা বাইরে না সরিয়ে আপনার নিতম্বটি পিছনে ঠেলে দিন। আপনার পায়ের গোড়ালি থেকে আপনার কোমর ভেতরে বা বাইরে না সরিয়ে 10-15 সেকেন্ড ধরে এই অবস্থানে থাকুন।

আরো দেখুন : ঘাড় ব্যথার কারণ ও প্রতিকার/ ঘাড় ব্যথা হাতে ছড়ালে করণীয় /মেরুদন্ডে ব্যথা হলে কি করনীয়

পিঠের পেশী নমনীয়তা ব্যায়াম: এই ব্যায়ামগুলি আপনার পিঠের পেশীগুলিকে নমনীয় করতে সাহায্য করে। কিছু সাধারণ পিঠের পেশী নমনীয়তা ব্যায়াম হল:

ক্যাট-কাউ ব্যায়াম: আপনার হাঁটু ভাঁজ করে, আপনার পা মেঝেতে স্থাপন করুন। আপনার পিঠ সোজা রাখুন এবং আপনার কোমরের উপরের অংশটি মেঝে থেকে তুলুন। আপনার মাথা এবং কাঁধ নিচু করুন, যেন আপনি একটি বিড়াল। তারপর, আপনার পিঠের উপরের অংশটি মেঝেতে ফেলে দিন এবং আপনার মাথা এবং কাঁধ উপরে তুলুন, যেন আপনি একটি কুকুর। এই ব্যায়ামটি 5-10 বার করুন।
পিঠে ব্যথার ব্যায়াম শুরু করার সময়, ধীরে ধীরে শুরু করুন এবং আপনার শরীরের প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করুন। ব্যথা অনুভব করলে ব্যায়াম বন্ধ করুন।

গর্ভাবস্থায় পিঠে ব্যথা হলে করণীয়

গর্ভাবস্থায় পিঠে ব্যথা একটি সাধারণ সমস্যা। প্রায় অর্ধেক গর্ভবতী মহিলারা গর্ভাবস্থার কোনো না কোনো সময়ে পিঠে ব্যথা অনুভব করেন।

গর্ভাবস্থায় পিঠে ব্যথার কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

জরায়ুর বৃদ্ধি: জরায়ুর বৃদ্ধি পিঠের উপর চাপ সৃষ্টি করে।

হরমোন পরিবর্তন: গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন পেশীগুলিকে শিথিল করতে পারে, যা পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে।

ওজন বৃদ্ধি: গর্ভাবস্থায় ওজন বৃদ্ধি পিঠের উপর চাপ বাড়ায়।

গর্ভাবস্থায় পিঠে ব্যথা  কিসের লক্ষণ হলে নিম্নলিখিতগুলি করার চেষ্টা করুন:

সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখুন: বসে, দাঁড়িয়ে বা হাঁটতে সময় সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার পিঠ সোজা রাখুন এবং আপনার মাথা উঁচু রাখুন।

ওজন নিয়ন্ত্রণ করুন: অতিরিক্ত ওজন পিঠের উপর চাপ বাড়ায়। আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে স্বাস্থ্যকর খাবার খান এবং নিয়মিত ব্যায়াম করুন।

পিঠের পেশী শক্তিশালী করুন: পিঠের পেশী শক্তিশালী করলে পিঠে ব্যথা প্রতিরোধ করতে সাহায্য করতে পারে। আপনার ডাক্তার বা ফিজিওথেরাপিস্ট আপনাকে পিঠের পেশী শক্তিশালী করার জন্য কিছু ব্যায়াম প্রশিক্ষণ দিতে পারেন।
গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ডিজাইন করা আসবাবপত্র ব্যবহার করুন: গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ডিজাইন করা আসবাবপত্র আপনার পিঠকে সমর্থন করতে সাহায্য করতে পারে।

ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করুন: হালকা থেকে মাঝারি মাপের পিঠে ব্যথার জন্য ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করতে পারেন। তবে, গর্ভাবস্থায় ব্যথানাশক ওষুধ সেবন করার আগে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

গর্ভবতী মহিলাদের জন্য পিঠে ব্যথা কিসের লক্ষণ ও যোগব্যায়াম করার উপকারিতা: গর্ভবতী মহিলাদের জন্য ডিজাইন করা যোগব্যায়াম পিঠে ব্যথা প্রতিরোধ করতে এবং ব্যথার তীব্রতা কমাতে সাহায্য করতে পারে।
গর্ভাবস্থায় পিঠে ব্যথা যদি তীব্র হয় বা এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে থাকে, তাহলে একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা গুরুত্বপূর্ণ।

পিঠে  ব্যথা কতটা স্বাভাবিক?

তীব্র (স্বল্পমেয়াদী) পিঠে ব্যথা কয়েক দিন থেকে কয়েক সপ্তাহ স্থায়ী হয়। এটি সাধারণত স্ব-যত্ন সহ কয়েক দিনের মধ্যে নিজেই সমাধান হয়ে যায় এবং দীর্ঘমেয়াদী কার্যকারিতা নষ্ট হয় না। দীর্ঘস্থায়ী পিঠে ব্যথা হল এমন ব্যথা যা ১২ সপ্তাহ বা তার বেশি সময় ধরে চলতে থাকে, এমনকি প্রাথমিক আঘাত বা পিঠে ব্যথার অন্তর্নিহিত কারণের চিকিত্সা করার পরেও।

সাধারণ জিজ্ঞাসাঃ

পিঠে ব্যথার প্রধান কারণ কী?

পিঠে ব্যথার সম্ভাব্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:অ্যাঙ্কাইলোজিং স্পন্ডিলাইটিস, এন্ডোমেট্রিওসিস, ফাইব্রোমায়ালজিয়া।

আমার পিঠের ব্যথা গুরুতর কিনা তা আমি কীভাবে জানব?

অসাড়তা, দুর্বলতার সংবেদন সহ পিঠে ব্যথা স্নায়ুর জ্বালা বা ক্ষতির লক্ষণ হতে পারে। এটি বিশেষ করে সত্য যদি ওভার-দ্য-কাউন্টার (OTC) ব্যথা নিরাময়কারী গ্রহণের পরে ব্যথা অব্যাহত থাকে। স্নায়ু ব্যথা গুরুতর এবং চিকিৎসা না করা হলে স্থায়ী ক্ষতি বা অক্ষমতা হতে পারে।

আমি কিভাবে আমার পিঠের ব্যথা বন্ধ করতে পারি?

সপ্তাহে কমপক্ষে 2 দিন পেশী শক্তিশালীকরণ এবং স্ট্রেচিং ব্যায়াম করুন,দাঁড়ান এবং সোজা হয়ে বসুন, ভারী উত্তোলন এড়িয়ে চলুন, আপনি যদি ভারী কিছু তোলেন, আপনার হাঁটু বাঁকুন এবং আপনার পিঠ সোজা রাখুন,সক্রিয় হন এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খান, অতিরিক্ত ওজন আপনার পিঠে চাপ দিতে পারে।

লিখেছেন-

ডাঃ সাইফুল ইসলাম, পিটি
বিপিটি ( ঢাবি ) , এমপিটি ( অর্থোপেডিকস ) – এন.আই.পি.এস , ইন্ডিয়া
পিজি.সি. ইন আকুপাংচার , ইন্ডিয়া
স্পেশাল ট্রেইন্ড ইন ওজন থেরাপি , ইউ.এস.এ এবং ওজোন ফোরাম , ইন্ডিয়া ।
ফিজিওথেরাপি কনসালট্যান্ট , ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার ।
পরামর্শ পেতে – 01760-636324 , 01932-797229 (সকাল ৯.০০ থেকে রাত ৯.০০ টা) 
ফেসবুকঃ ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার 
এপয়েন্টম্যান্ট নিতে ক্লিক করুনঃ
https://visionphysiotherapy.com/appoi..

 

visionphysiotherapy
visionphysiotherapy
Articles: 82