মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা । চিকিৎসা , প্রতিকার ও ব্যায়াম

মেরুদন্ডের ব্যথা কি?

মেরুদন্ডের ব্যথা হল মেরুদন্ডের যে কোন অংশে ব্যথা বা অস্বস্তি। এটি একটি সাধারণ অবস্থা যা প্রায়ই আঘাত, ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ বা মেরুদন্ডের স্টেনোসিসের কারণে হয়। মেরুদন্ডের ব্যথা তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে, এবং এটি পায়ে ব্যথা, অসাড়তা বা দুর্বলতা হতে পারে।

মেরুদণ্ডের শেষ অংশে ব্যথা :ককসিডাইনিয়া

ককসিডাইনিয়া কি?

ককসিডাইনিয়া হল কটিদেশীয় হাড় (সায়াটিক স্পাইন) বা কোমর-এর নিচের অংশে ব্যথা বা মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা। এটি একটি সাধারণ অবস্থা যা প্রায়শই দীর্ঘস্থায়ী হয়। এটি তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে, এবং এটি পায়ে ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে।
ককসিডাইনিয়ায় আক্রান্ত ব্যক্তিরা সাধারণত কোমর বা নিতম্বের পিছনে ব্যথা অনুভব করেন। ব্যথা তীব্র বা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে, এবং এটি পায়ে ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে। ব্যথা বসে থাকলে বা দাঁড়ালে আরও খারাপ হতে পারে।
ককসিডাইনিয়ার অনেকগুলি সম্ভাব্য কারণ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে:
মাংসপেশির টান বা আঘাত: দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকা বা ঝুঁকানো, বা ভারী জিনিস তুলে নেওয়ার সময় ভুল ভঙ্গিমা মাংসপেশির টান বা আঘাতের কারণ হতে পারে।

ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ: বয়সের সাথে সাথে, মেরুদন্ডের ডিস্কগুলি নরম এবং পাতলা হয়ে যায়, যা মেরুদন্ডের হাড়গুলির মধ্যে ঘর্ষণ সৃষ্টি করতে পারে। এই ঘর্ষণ ব্যথা এবং মেরুদণ্ডের ক্ষতি হতে পারে।

মেরুদণ্ডের স্টেনোসিস: মেরুদণ্ডের স্টেনোসিস হল একটি অবস্থা যেখানে মেরুদন্ডের চ্যানেল সংকীর্ণ হয়ে যায়, যার ফলে মেরুদন্ডের স্নায়ুগুলি সংকুচিত হয়। এটি ব্যথা, অসাড়তা এবং মাংসপেশির দুর্বলতা সৃষ্টি করতে পারে।

সায়্যাটিক ব্যথা: সায়্যাটিক ব্যথা হল একটি অবস্থা যেখানে সায়্যাটিক স্নায়ুতে ব্যথা হয়। সায়্যাটিক স্নায়ু মেরুদণ্ড থেকে পা পর্যন্ত বিস্তৃত হয়, এবং এটি আঘাত, ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ বা মেরুদণ্ডের স্টেনোসিসের কারণে সংকুচিত হতে পারে।

স্পন্ডিলোসিস: স্পন্ডিলোসিস হল একটি অবস্থা যেখানে মেরুদন্ডের হাড়গুলির প্রান্তে অস্টিওফাইটস (হাড়ের বৃদ্ধি) গঠিত হয়। এই অস্টিওফাইটগুলি মেরুদন্ডের টিস্যুগুলিকে ঘর্ষণ করতে পারে এবং ব্যথা সৃষ্টি করতে পারে।

মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা কেন হয়?

মেরুদন্ডের ব্যথার অনেকগুলি সম্ভাব্য কারণ রয়েছে,মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা যার মধ্যে রয়েছে:

আঘাত: মেরুদন্ডের ব্যথার সবচেয়ে সাধারণ কারণ হল আঘাত। এটি একটি ঝুঁকিপূর্ণ কাজ বা ক্রিয়াকলাপ থেকে হতে পারে, যেমন ঝুঁকানো, ঘুরানো বা ভারী জিনিস তোলা।

ডিজেনারেটিভ ডিস্ক রোগ: বয়সের সাথে সাথে, মেরুদন্ডের ডিস্কগুলি নরম এবং পাতলা হয়ে যায়, যা মেরুদন্ডের হাড়গুলির মধ্যে ঘর্ষণ সৃষ্টি করতে পারে। এই ঘর্ষণ ব্যথা এবং মেরুদণ্ডের ক্ষতি হতে পারে।

মেরুদণ্ডের স্টেনোসিস: মেরুদণ্ডের স্টেনোসিস হল একটি অবস্থা যেখানে মেরুদণ্ডের চ্যানেল সংকীর্ণ হয়ে যায়, যার ফলে মেরুদণ্ডের স্নায়ুগুলি সংকুচিত হয়। এটি ব্যথা, অসাড়তা এবং মাংসপেশির দুর্বলতা সৃষ্টি করতে পারে।

অন্যান্য রোগ: মেরুদন্ডের ব্যথার অন্যান্য সম্ভাব্য কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

স্পন্ডিলাইটিস: স্পন্ডিলাইটিস হল একটি অবস্থা যেখানে মেরুদণ্ডের সন্ধিগুলি প্রদাহিত হয়।

অস্ট্রিওপোরোসিস: অস্ট্রিওপোরোসিস হল একটি অবস্থা যেখানে হাড় দুর্বল এবং ভঙ্গুর হয়ে যায়। এটি মেরুদণ্ডের হাড়ের ক্ষতি এবং ব্যথা হতে পারে।

মেরুদণ্ডের ক্যান্সার: মেরুদণ্ডের ক্যান্সার একটি বিরল কিন্তু গুরুতর অবস্থা যা মেরুদণ্ডের ব্যথার কারণ হতে পারে।

মেরুদন্ডের ব্যথার চিকিৎসা তার কারণ এবং তীব্রতার উপর নির্ভর করে। চিকিৎসার বিকল্পগুলির মধ্যে রয়েছে:

মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা চিকিৎসার বিকল্পগুলির মধ্যে রয়েছে:

ওষুধ: ব্যথানাশক, প্রদাহ-বিরোধী ওষুধ এবং স্নায়ু-শক্তিশালী ওষুধগুলি মেরুদণ্ডের ব্যথার চিকিৎসায় সাহায্য করতে পারে।
ফিজিওথেরাপি: ফিজিওথেরাপি পেশী শক্তি এবং নমনীয়তা উন্নত করতে এবং ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করতে পারে।

ইনজেকশন: কর্টিকোস্টেরয়েড বা ব্যথানাশক ইনজেকশনগুলি মেরুদণ্ডের ব্যথার তীব্র লক্ষণগুলি উপশম করতে সাহায্য করতে পারে।

অস্ত্রোপচার: গুরুতর ক্ষেত্রে, অস্ত্রোপচার মেরুদণ্ডের ব্যথার কারণগুলির চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন হতে পারে।
মেরুদন্ডের ব্যথার জন্য কোন একক প্রতিকার নেই। আপনার ডাক্তারের সাথে কাজ করে, আপনি আপনার নির্দিষ্ট অবস্থার জন্য সেরা চিকিৎসা পদ্ধতি খুঁজে পেতে পারেন।

এখানে কিছু অতিরিক্ত টিপস রয়েছে যা মেরুদন্ডের ব্যথার চিকিৎসায় সাহায্য করতে পারে:

সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখুন: যখন আপনি দাঁড়ান, বসেন বা হাঁটেন তখন আপনার শরীরের সোজা অবস্থান বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন: নিয়মিত ব্যায়াম পেশী শক্তি এবং নমনীয়তা উন্নত করতে সাহায্য করতে পারে, যা মেরুদন্ডের ব্যথা প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে।

ওজন কমাতে কাজ করুন: অতিরিক্ত ওজন মেরুদন্ডের উপর চাপ বাড়াতে পারে, যা ব্যথার কারণ হতে পারে।

পর্যাপ্ত ঘুম  : পর্যাপ্ত ঘুম পেশী এবং টিস্যুগুলিকে শক্তিশালী করতে এবং ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করতে পারে।

স্ট্রেস কমাতে কাজ করুন: স্ট্রেস মেরুদন্ডের ব্যথাকে আরও বাড়ায়। স্ট্রেস নিয়ন্ত্রনের কৌশলগুলি, যেমন যোগব্যায়াম বা ধ্যান, ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

আপনার যদি মেরুদন্ডের ব্যথা হয় তবে আপনার ডাক্তারের সাথে দেখা করা গুরুত্বপূর্ণ। তারা আপনার ব্যথার কারণ নির্ণয় করতে এবং আপনার জন্য সেরা চিকিৎসা পরিকল্পনা তৈরি করতে সাহায্য করতে পারবেন।

মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষা

মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা  চিকিৎসার জন্য অনেকগুলি পরীক্ষা রয়েছে। আপনার ডাক্তার আপনার ব্যথার কারণ নির্ণয় করতে আপনার ইতিহাস, শারীরিক পরীক্ষা এবং এক্স-রে পরীক্ষার উপর ভিত্তি করে রোগ  নির্ণয় করতে সক্ষম হবেন।

আপনার ইতিহাস এবং শারীরিক পরীক্ষা আপনার ডাক্তারকে আপনার ব্যথার কারণ সম্পর্কে অনেক তথ্য দিতে পারে। তারা আপনাকে আপনার ব্যথার অবস্থান, তীব্রতা এবং সময়কাল সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করবে। তারা আপনার পেশী শক্তি এবং নমনীয়তা পরীক্ষা করবে এবং আপনার মেরুদন্ড পরীক্ষা করবে।এক্স-রে পরীক্ষাগুলি আপনার মেরুদন্ডের অভ্যন্তরের একটি স্পষ্ট চিত্র প্রদান করতে পারে। আপনার ডাক্তার এক্স-রে, এমআরআই বা সিটি স্ক্যানের পরামর্শ দিতে পারেন।

এক্স-রে হল একটি সাধারণ চিত্রগ্রহণ পরীক্ষা যা মেরুদন্ডের হাড়ের কাঠামো দেখাতে পারে। এমআরআই হল একটি শক্তিশালী চৌম্বক ব্যবহার করে একটি চিত্র তৈরি করে এমন একটি পরীক্ষা যা মেরুদন্ডের টিস্যুর বিস্তারিত চিত্র প্রদান করতে পারে। সিটি স্ক্যান হল একটি কম্পিউটার-এনালাইজড এক্স-রে যা মেরুদন্ডের একটি ত্রিমাত্রিক চিত্র তৈরি করতে পারে।

মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা  প্রতিরোধে কিছু জিনিস করা যেতে পারে:

সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখুন: যখন আপনি দাঁড়ান, বসেন বা হাঁটেন তখন আপনার শরীরের সোজা অবস্থান বজায় রাখা গুরুত্বপূর্ণ।

এখানে কিছু নির্দিষ্ট টিপস রয়েছে যা মেরুদন্ডের শেষ অংশে ব্যথা প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে:

  • যখন আপনি দাঁড়ান, তখন আপনার পিঠ সোজা রাখুন এবং আপনার কোমরটিকে পিছনে বাঁকিয়ে রাখুন।
  • যখন আপনি বসেন, তখন একটি শক্ত, সমর্থনমূলক চেয়ার ব্যবহার করুন এবং আপনার পিঠটিকে পিছনে বাঁকিয়ে রাখুন।
  • যখন আপনি হাঁটেন, তখন আপনার পাগুলি সোজা রাখুন এবং আপনার কোমরটিকে পিছনে বাঁকিয়ে রাখুন।
  • আপনার পেশীগুলিকে শক্তিশালী করতে এবং নমনীয়তা বাড়াতে নিয়মিত ব্যায়াম করুন।
  • আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুন।
  • পর্যাপ্ত ঘুম  ঘুমান।
  • স্ট্রেস নিয়ন্ত্রনের কৌশলগুলি শিখুন।

আপনি যদি এই টিপসগুলি অনুসরণ করেন তবে আপনি মেরুদন্ডের ব্যথার ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করতে পারেন।

আরও জানুন : কোমর ব্যাথা নিরাময়ে আকুপাংচার যেন এক অনন্য চিকিৎসা

মেরুদন্ডের ব্যথার ব্যায়াম

ঘরে বসে মেরুদন্ড প্রসারিত করার অনেকগুলি উপায় রয়েছে। এখানে কয়েকটি জনপ্রিয় পদ্ধতি রয়েছে:

Cat-Cow Pose:

এই পোজটি আপনার মেরুদন্ডকে প্রসারিত এবং শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। আপনার হাঁটু এবং কনুইয়ে ভর দিয়ে শুরু করুন, আপনার পিঠকে নরম করে এবং আপনার মাথাকে নিচে নামিয়ে দিন। তারপরে, আপনার পিঠকে বাঁকিয়ে এবং আপনার মাথাকে উপরে তুলে দিন। এই পোজটি 5-10 বার পুনরাবৃত্তি করুন

Cat Cow Pose

Child’s Pose

এই পোজটি আপনার মেরুদন্ডকে শিথিল করতে এবং আপনার পিঠের ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সাহায্য করে। আপনার হাঁটু এবং কনুইয়ে ভর দিয়ে শুরু করুন, আপনার পিঠকে মেঝেতে এল-আকৃতির মতো রাখুন। তারপরে, আপনার বুককে আপনার হাঁটুর কাছে আনুন এবং আপনার মাথাকে মেঝেতে ঝুঁকিয়ে দিন। এই পোজটি 1-2 মিনিট ধরে রাখুন।

child pose

Pigeon Pose

এই পোজটি আপনার মেরুদন্ডের নিচের অংশকে প্রসারিত করতে সাহায্য করে। আপনার হাঁটু এবং কনুইয়ে ভর দিয়ে শুরু করুন, আপনার ডান পা সামনে প্রসারিত করুন এবং আপনার বাম পাকে আপনার পেছনে ভাঁজ করুন। আপনার ডান হাঁটুকে আপনার ডান কোলের সামনে আনুন। আপনার পিঠকে সোজা রাখুন এবং আপনার বাম পায়ে চাপ দিন। এই পোজটি 30 সেকেন্ড ধরে রাখুন এবং তারপরে অন্য পাশে পুনরাবৃত্তি করুন।

Pegeon

Bridge Pose

এই পোজটি আপনার মেরুদন্ডের নিচের অংশকে প্রসারিত এবং শক্তিশালী করতে সাহায্য করে। আপনার পিঠে শুয়ে, আপনার হাঁটু ভাঁজ করুন এবং আপনার পা মেঝেতে রাখুন। আপনার হাত আপনার পাশে রাখুন। আপনার কোমরটি মেঝে থেকে উপরে তুলুন, আপনার পায়ে চাপ দিন এবং আপনার নিতম্বগুলিকে উপরে তুলুন। আপনার মেরুদন্ডকে একটি সোজা রেখায় রাখুন। এই পোজটি 30 সেকেন্ড ধরে রাখুন।

bridge pose

Cobra Pose

এই পোজটি আপনার মেরুদন্ডের উপরের অংশকে প্রসারিত করতে সাহায্য করে। আপনার পেটে শুয়ে, আপনার হাঁটু ভাঁজ করুন এবং আপনার পা মেঝেতে রাখুন। আপনার হাত আপনার পাশে রাখুন। আপনার কোমরটি মেঝে থেকে উপরে তুলুন, আপনার পায়ে চাপ দিন এবং আপনার বুককে মেঝে থেকে উপরে তুলুন। আপনার মাথাটি মেঝে থেকে উপরে তুলুন এবং আপনার চোখ সামনে রাখুন। এই পোজটি 30 সেকেন্ড ধরে রাখুন।

cubra pose

আপনি যদি মেরুদন্ডের ব্যথায় ভোগেন তবে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করার আগে এই পোজগুলি চেষ্টা করা গুরুত্বপূর্ণ। তারা আপনাকে আপনার জন্য সবচেয়ে নিরাপদ এবং কার্যকর পোজগুলি বেছে নিতে সাহায্য করতে পারেন।

এখানে আরও কিছু টিপস রয়েছে যা আপনাকে ঘরে বসে আপনার মেরুদন্ড প্রসারিত করতে সাহায্য করতে পারে:

  • নিয়মিত ব্যায়াম করুন। ব্যায়াম আপনার পেশীগুলিকে শক্তিশালী করতে এবং আপনার মেরুদন্ডকে সমর্থন করতে সাহায্য করে।
  • সঠিক ভঙ্গি বজায় রাখুন। যখন আপনি দাঁড়ান, বসেন বা হাঁটেন তখন আপনার পিঠ সোজা রাখুন।
  • ভারী জিনিস তুলতে সতর্ক হন। ভারী জিনিস তুলতে হলে আপনার হাঁটু বাঁকিয়ে এবং আপনার পিঠ সোজা রাখুন।

load lifting

 

 

[sc_fs_multi_faq headline-0=”h3″ question-0=” ককসিডাইনিয়া এর কারণ কি?” answer-0=”ককসিডাইনিয়া এর সবচেয়ে সাধারণ ইটিওলজি হল বাহ্যিক বা অভ্যন্তরীণ ট্রমা। ককসিড বসার সময় সমর্থন প্রদানের জন্য ইস্কিয়াল টিউবোরোসিটি সহ ট্রাইপডের তৃতীয় পা হিসাবে কাজ করে। ” image-0=”” headline-1=”h3″ question-1=”মেরুদন্ড প্রসারিত করার উপায় ঘরোয়া উপায় কি?” answer-1=”১) একটি বালিশ নিয়ে টেবিলে বা বিছানায় রাখুন। ২) আপনি আপনার পেটের উপর শুবেন এবং আপনার পেলভিক অঞ্চলে বালিশটি রাখবেন এবং নিজেকে এমনভাবে রাখবেন যাতে আপনার হাত এবং মাথা বিছানা বা টেবিল থেকে ঝুলে থাকে। ৩) আপনার হাত প্রসারিত করুন এবং মেঝের নীচের দিকে মাথা রাখুন। ৪) এই ব্যায়াম করার সময় গভীর এবং দীর্ঘ শ্বাস নিন।” image-1=”” count=”2″ html=”true” css_class=””]

আরও জানুন : কোমরের দুই পাশে ব্যথার কারণ, চিকিৎসা ও তার প্রতিকার

লিখেছেন-

ডাঃ সাইফুল ইসলাম, পিটি
বিপিটি ( ঢাবি ) , এমপিটি ( অর্থোপেডিকস ) – এন.আই.পি.এস , ইন্ডিয়া
পিজি.সি. ইন আকুপাংচার , ইন্ডিয়া
স্পেশাল ট্রেইন্ড ইন ওজন থেরাপি , ইউ.এস.এ এবং ওজোন ফোরাম , ইন্ডিয়া ।
ফিজিওথেরাপি কনসালট্যান্ট , ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার ।
পরামর্শ পেতে – 01760-636324 , 01932-797229 (সকাল ৯.০০ থেকে রাত ৯.০০ টা) 
ফেসবুকঃ ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার 
এপয়েন্টম্যান্ট নিতে ক্লিক করুনঃ
https://visionphysiotherapy.com/appoi..

 

 

Visionphysiotherapy Centre
Visionphysiotherapy Centre
Articles: 79