অস্টিওপোরোসিস কি । অস্টিওপোরোসিস কেন হয়

অস্টিওপরোসিস হল হাড়ের একটি রোগ যা হাড়ের খনিজ ঘনত্ব এবং হাড়ের ভর কমে গেলে বা হাড়ের গঠন ও শক্তি পরিবর্তন হলে শরীরে হয়ে থাকে। এটি হাড়ের শক্তি কমিয়ে দেয় যার ফলে ফ্র্যাকচারের(হাড় ভেঙ্গে যাওয়া) ঝুঁকি বেড়ে যায়।

অস্টিওপরোসিস কি?

 সাধারণত অস্টিওপরোসিসে আমাদের শরীরে কোন উপসর্গ দেখা যায় না,যার ফলে আমাদের হাড় ভেঙ্গে না যাওয়া পর্যন্ত আমরা এই রোগটি আছে তা জানতেও পারি না।
অস্টিওপোরোসিস কেন হয় ,অস্টিওপোরোসিস হল পোস্টমেনোপজাল মহিলাদের এবং বয়স্ক পুরুষদের মধ্যে ফ্র্যাকচারের প্রধান একটি কারণ।
ফ্র্যাকচার যে কোনো হাড়ে ঘটতে পারে কিন্তু নিতম্বের হাড়, মেরুদণ্ডের হাড় এবং কব্জির হাড়ে বেশি ঘটে।
যাইহোক, আমরা এই রোগ এবং ফ্র্যাকচার থেকে নিজেদের প্রতিরোধ করার জন্য পদক্ষেপ নিতে পারি যেমন –

১. নিয়মিত হাঁটার অভ্যাস করব। শরীরের ওজন ঠিক রাখতে নিয়মিত ব্যায়াম করব।
২.যারা অ্যালকোহল পান করি,চেষ্টা করব অ্যালকোহল পান করা কমিয়ে দিতে।
৩.ধূমপান ত্যাগ করব বা ধূমপান না করলে শুরু কখনোই  করবো না।
৪.ভাল হাড়ের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করার জন্য ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ  পুষ্টিকর খাবার খাব।

কাদের অস্টিওপোরোসিস হয় ,অস্টিওপোরোসিস কেন হয়?

অস্টিওপোরোসিস কেন হয় ,অস্টিওপোরোসিস সমস্ত জাতি এবং জাতিগত গোষ্ঠীর নারী এবং পুরুষদের প্রভাবিত করে।তবে পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের বেশি অস্টিওপরোসিস হয়ে থাকে। অস্টিওপোরোসিস যেকোন বয়সে ঘটতে পারে, যদিও বয়স বাড়ার সাথে সাথে এই রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। অনেক মহিলার ক্ষেত্রে, মেনোপজের এক বা দুই বছর আগে থেকে রোগটির বিকাশ শুরু হয়।
কিছু ওষুধ, যেমন কিছু ক্যান্সারের ওষুধ এবং গ্লুকোকোর্টিকয়েড স্টেরয়েড, অস্টিওপরোসিস হওয়ার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

অস্টিওপোরোসিসের লক্ষণ কি?

অস্টিওপরোসিসকে “নীরব” রোগ বলা হয় কারণ হাড় ভেঙে না যাওয়া পর্যন্ত সাধারণত কোনো উপসর্গ থাকে না। মেরুদণ্ডের (মেরুদণ্ড) ফ্র্যাকচারের লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে
★ তীব্র পিঠে ব্যথা
★ হাড়  ছোটো হয়ে যাওয়া ।
★ মেরুদণ্ডের বিকৃতি যেমন – কুঁজানো ভঙ্গি (কাইফোসিস)।
★ পিঠের মাংসপেশি শক্ত হয়ে যাওয়া।
★ ছোটখাটো পতন, যেমন দাঁড়ানো অব্স্থান থেকে হঠাৎ পড়ে যাওয়ার কারণে হাড় ভেঙ্গে যাওয়া যা সাধারণত অবস্থায় একটি সুস্থ হাড় ভেঙে যায় না।
★ পিঠে স্বাভাবিক ভাবে চাপ বেড়ে যাওয়া।

অস্টিওপোরোসিস কেন হয়?

অস্টিওপোরোসিস হয় যখন হাড়ের ভর খুব বেশি  হারিয়ে যায় এবং হাড়ের টিস্যুর গঠনে পরিবর্তন ঘটে। কিছু ঝুঁকির কারণ অস্টিওপোরোসিসের বিকাশ ঘটাতে পারে বা আমাদের এই রোগ হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিতে পারে।
অস্টিওপোরোসিস কেন হয়,অস্টিওপরোসিসে আক্রান্ত অনেক লোকের ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে যে বেশ কয়েকটি ঝুঁকির কারণে তাদের অস্টিওপরোসিস হয়েছে। আবার অনেক সময় দেখা যায় অনেকের মাঝে অস্টিওপোরোসিস বিকাশ করে তাদের কোনো নির্দিষ্ট ঝুঁকির কারণ থাকে না। কিছু ঝুঁকির কারণ আছে যা আমরা পরিবর্তন করতে পারব না, এবং অন্যগুলি যা আমরা পরিবর্তন করতে পারব। যাইহোক, কিছু কারন রয়েছে যা জানা থাকলে আমরা আমাদেরকে পরোসিস এবং ফ্র্যাকচার থেকে প্রতিরোধ করতে পাড়ব।
অস্টিওপরোসিসের জন্য আমাদের ঝুঁকি বাড়াতে পারে এমন কারণগুলির মধ্যে রয়েছে:

১.লিঙ্গ:পুরুষের তুলনায় মহিলাদের অস্টিওপরোসিস হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। কারন মহিলাদের হাড়ের ভর কম এবং পুরুষদের তুলনায়  হাড় ছোট থাকে। তবে পুরুষদের ক্ষত্রে ঝুঁকি বেশি থাকে  ৭০  বছর বয়সের পরে।

২.বয়স: আমাদের বয়স বারার সাথে সাথে হাড়ের ক্ষয় আরও দ্রুত হয় এবং নতুন হাড়ের বৃদ্ধি কমে যায়। সময়ের সাথে সাথে, আমাদের হাড় দুর্বল হতে থাকে। যার কারনে  অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বয়েস বাড়ার সাথে সাথে বেড়ে যায়।

৩.শরীরের উচ্চতা ওজন  মহিলা এবং পুরুষদের অস্টিওপোরোসিস হওয়ার ঝুঁকি বেশি।

৪.জাতি:শ্বেতাঙ্গ ও এশীয় নারীরা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে। আফ্রিকান আমেরিকান এবং মেক্সিকান আমেরিকান মহিলাদের কম ঝুঁকি আছে। আফ্রিকান আমেরিকান এবং মেক্সিকান আমেরিকান পুরুষদের তুলনায় শ্বেতাঙ্গ পুরুষদের ঝুঁকি বেশি।

৫.পারিবারিক ইতিহাস: গবেষনায় দেখা গিয়েছে যে আমাদের পিতামাতার একজনের অস্টিওপোরোসিস বা হিপ ফ্র্যাকচারের ইতিহাস থাকলে অস্টিওপোরোসিস এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি তাদের সন্তানের বেড়ে যায়।

৬.হরমোনের পরিবর্তন: নির্দিষ্ট হরমোনের কম মাত্রা আমাদের অস্টিওপরোসিস হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে দিতে পারে। উদাহরণ স্বরূপ – মেনোপজের পরে মহিলাদের মধ্যে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা কমে যায়,এর ফলে মহিলারা এই সময় বেশি ঝুঁকিতে থাকে।

৬.পুরুষদের মধ্যে টেসটোসটেরনের মাত্রা কম। কম টেস্টোস্টেরন সৃষ্টিকারী অবস্থার পুরুষদের অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি থাকে। যাইহোক, বার্ধক্যের সাথে টেস্টোস্টেরনের ক্রমশ হ্রাস সম্ভবত হাড়ের ক্ষয়ের একটি কারন।

৭.ডায়েট: শৈশব থেকে শুরু করে এবং বৃদ্ধ বয়সে, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন ডি কম খাবার অস্টিওপোরোসিস এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। অত্যধিক ডায়েটিং বা দুর্বল প্রোটিন গ্রহণ আপনার হাড় ক্ষয় এবং অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

৮.অন্যান্য চিকিৎসা শর্ত। কিছু চিকিৎসা শর্ত যা আপনি চিকিৎসা করতে বা পরিচালনা করতে পারেন তা অস্টিওপরোসিসের ঝুঁকি বাড়াতে পারে, যেমন অন্যান্য অন্তঃস্রাব এবং হরমোনজনিত রোগ, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল রোগ, রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস, নির্দিষ্ট ধরনের ক্যান্সার, এইচআইভি/এইডস এবং অ্যানোরেক্সিয়া নার্ভোসা।

৯.ওষুধ:নির্দিষ্ট ওষুধের দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহার আপনাকে হাড়ের ক্ষয় এবং অস্টিওপরোসিস হওয়ার সম্ভাবনা বাড়িয়ে তুলতে পারে, যেমন-Glucocorticoids এবং adrenocorticotropic হরমোন, যা হাঁপানি এবং রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের মতো বিভিন্ন অবস্থার চিকিৎসা করে।
★ অ্যান্টিপিলেপটিক ওষুধ, যা খিঁচুনি এবং অন্যান্য স্নায়বিক রোগের চিকিৎসা করে।
★ ক্যান্সারের ওষুধ, যা স্তন এবং প্রোস্টেট ক্যান্সারের চিকিৎসার জন্য হরমোন ব্যবহার করে।
★ প্রোটন পাম্প ইনহিবিটার, যা পেটের অ্যাসিড কম করে।
★ সিলেক্টিভ সেরোটোনিন রিউপটেক ইনহিবিটরস, যা হতাশা এবং উদ্বেগের চিকিৎসা করে।
★ থিয়াজোলিডিনেডিওনস, যা টাইপ II ডায়াবেটিসের চিকিৎসা করে।

১০.জীবনধারা: একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা হাড় মজবুত রাখার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। হাড় ক্ষয়ের জন্য অবদান রাখে এমন কারণগুলির মধ্যে রয়েছে –

 ★ নিম্ন স্তরের শারীরিক কার্যকলাপ এবং দীর্ঘস্থায়ী নিষ্ক্রিয়তা হাড়ের ক্ষয় বৃদ্ধির হারে অবদান রাখতে পারে। এছাড়াও তারা আপনাকে দুর্বল শারীরিক অবস্থায় রেখে যায়, যা আপনার হাড় ভেঙে পড়ার ঝুঁকি বাড়াতে পারে।
★ দীর্ঘস্থায়ী ভারী অ্যালকোহল পান করা অস্টিওপোরোসিসের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য ঝুঁকির কারণ।
★ ধূমপান অস্টিওপরোসিস এবং ফ্র্যাকচারের ঝুঁকির কারণ।

অস্টিওপোরোসিস সম্পর্কিত কিছু তথ্য ,অস্টিওপোরোসিস কেন হয়

# কিশোর অস্টিওপোরোসিস:

অস্টিওপরোসিস একটি হাড়ের রোগ যা হাড় দুর্বল এবং কম ঘন হয়ে গেলে বিকাশ লাভ করে। যখন একটি শিশু বা কিশোরের  অস্টিওপোরোসিস হয়, তখন এই অবস্থাটি কিশোর অস্টিওপরোসিস নামে পরিচিত।

# পুরুষদের মধ্যে অস্টিওপরোসিস:

অস্টিওপোরোসিস হল হাড়ের একটি রোগ যা হাড়ের খনিজ ঘনত্ব এবং হাড়ের ভর কমে গেলে বা হাড়ের গুণমান বা গঠন পরিবর্তন হলে বিকাশ হয়। এর ফলে হাড়ের শক্তি কমে যেতে পারে যা ভাঙ্গা হাড়ের (ফ্র্যাকচার) ঝুঁকি বাড়াতে পারে।

# গর্ভাবস্থা, বুকের দুধ খাওয়ানো এবং হাড়ের স্বাস্থ্য:

গর্ভাবস্থা এবং বুকের দুধ খাওয়ানো নারীর হাড়কে কীভাবে প্রভাবিত করে?অস্টিওপোরোসিস কেন হয়  গর্ভাবস্থায় এবং স্তন্যপান করানোর সময় ক্যালসিয়ামের চাহিদা বেশি – যেহেতু এটি মায়ের গর্ভে এবং জন্মের পরে শিশুর বৃদ্ধি এবং বিকাশকে সমর্থন করার জন্য প্রয়োজন।

কিভাবে অস্টিওপরোসিস চিকিৎসা করা হয়?

আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারী এমন একটি চিকিত্সার সংমিশ্রণের পরামর্শ দেবেন যা আপনার হাড়ের ক্ষয় কমিয়ে দেয় এবং আপনার বিদ্যমান হাড়ের টিস্যুকে শক্তিশালী করে। অস্টিওপরোসিসের চিকিৎসার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল হাড় ভাঙা প্রতিরোধ করা।

অস্টিওপরোসিস হলে করণীয়?

ব্যায়াম: নিয়মিত ব্যায়ামের মাধ্যমে আমাদের হাড়কে শক্তিশালী করতে পারি ( হাড়ের সাথে সংযুক্ত সমস্ত টিস্যু, যেমন মাংসপেশী, টেন্ডন এবং লিগামেন্ট)। যেমন হাঁটা, যোগব্যায়াম, পাইলেটস আমাদের হাড়ের উপর খুব বেশি চাপ না দিয়ে আমাদের শক্তি এবং ভারসাম্যকে উন্নত করে। আমাদের জন্য উপযুক্ত ব্যায়াম খুঁজে পেতে আমাদের অবশ্যয় একজন ফিজিওথেরাপিস্ট চিকিৎসক দেখাতে পারি।

★ ভিটামিন এবং খনিজের পরিমান ঠিক রাখতে ক্যালসিয়াম বা ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট নিতে পারি তবে অবশ্যয় এক জন চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিব।

#অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধে ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার ভূমিকা :

অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধ এবং পরিচালনা উভয় ক্ষেত্রেই ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা সাহায্য করতে পারে। একজন  থেরাপিস্ট সপ্তাহ এবং মাস ধরে আমাদের হাড় এবং পেশী শক্তিশালী করার জন্য একটি ব্যায়াম প্রোগ্রাম তৈরি করে। এটি আমাদের ভারসাম্য উন্নত করতে এবং পরে যাওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস করতে সহায়তা করে।

ফিজিওথেরাপি চিকিৎসা অস্টিওপরোসিসের কারণে আঘাতের পুনর্বাসনেও সাহায্য করতে পারে এবং আমরা যদি দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা অনুভব করি আমাদের জীবনযাত্রার মান উন্নত করতে পারে ব্যথা কমিয়ে।

#ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার সুবিধা

অস্টিওপোরোসিস কেন হয় ,অস্টিওপরোসিস প্রতিরোধ এবং পরিচালনার জন্য নিয়মিত  ব্যায়াম গুরুত্বপূর্ণ।
একজন ফিজিওথেরাপি চিকিৎসাক আমাদের সাহায্য করতে আমাদের ফিজিওথেরাপি চিকিৎসার মাধ্যমে যেমন-
১.আমাদের ভারসাম্য উন্নত করতে
২.পতনের সম্ভাবনা কমাতে
৩.আমাদের পেশী প্রসারিত এবং শক্তিশালী করতে
৪.সঠিক অঙ্গভঙ্গির নির্দেশনার মাধ্যমে

[sc_fs_multi_faq headline-0=”h3″ question-0=”অস্টিওপরোসিস কি?/ কিসের রোগ? ” answer-0=”অস্টিওপরোসিস হল হাড়ের রোগ। সাধারণত হাড়ের খনিজ ঘনত্ব এবং হাড়ের ভর কমে গেলে বা হাড়ের গঠন ও শক্তির পরিবর্তন হলে হয়।অস্টিওপরোসিস হলে হাড়ের শক্তি কমে যায়, যার ফলে ফ্র্যাকচারের ঝুঁকি বাড়ে যায়। ” image-0=”” headline-1=”h3″ question-1=”অস্টিওপরোসিস কত প্রকার?” answer-1=”অস্টিওপরোসিস ৩ প্রকার । ক.প্রাথমিক অস্টিওপরোসিস খ.সেকেন্ডারি অস্টিওপরোসিস গ.ইডিওপ্যাথিক কিশোর অস্টিওপরোসিস” image-1=”” headline-2=”h3″ question-2=”অস্টিওপরোসিস মহিলাদের বেশি হয় কেন?” answer-2=”মহিলারা সাধারণত পুরুষদের তুলনায় অল্প বয়সে অস্টিওপরোসিসে আক্রান্ত হয়, কারণ মহিলাদের হাড়ের ভর পুরুষদের তুলনায় কম থাকে।” image-2=”” headline-3=”h3″ question-3=”কত বছর বয়সে অস্টিওপরোসিস বেশি হয়?” answer-3=”★ মহিলাদের মধ্যে, হাড়ের ক্ষয় সাধারণত মাসিক বন্ধ হওয়ার পরে শুরু হয়। এটি ঘটে যখন একজন মহিলার ইস্ট্রোজেন কম হয়ে যায় (সাধারণত 45 থেকে 55 বছর বয়সের মধ্যে)।

★ পুরুষদের মধ্যে, ধীরে ধীরে হাড় পাতলা হওয়া শুরু হয় প্রায় 45 থেকে 50 বছর বয়সে, যখন একজন পুরুষের টেস্টোস্টেরনের উৎপাদন কমে যায়। অস্টিওপরোসিস সাধারণত 60 বছর বা তার বেশি বয়স পর্যন্ত মানুষের উপর প্রভাব ফেলে না। মহিলারা সাধারণত পুরুষদের তুলনায় অল্প বয়সে আক্রান্ত হয়, কারণ তাদের হাড়ের ভর কম থাকে।” image-3=”” count=”4″ html=”true” css_class=””]

আরও জানুনঃ বাত ব্যাথার ঔষধের নাম | আর্থ্রাইটিসের চিকিৎসা

ধন্যবাদান্তে_
ডাঃ মাসুমা খানম, ফিজিওথেরাপিষ্ট
ইনচার্জ (ফিমেল ইউনিট), ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার,বাসা#৪২, লেক ড্রাইভ রোড, সেক্টর#৭,
উত্তরা, ঢাকা -১২৩০

পরামর্শ পেতে – 01760-636324 , 01932-797229 (সকাল ৯.০০ থেকে রাত ৯.০০ টা) 
ফেসবুকঃ ভিশন ফিজিওথেরাপি সেন্টার 
এপয়েন্টম্যান্ট নিতে ক্লিক করুনঃ
https://visionphysiotherapy.com/appoi..

Visionphysiotherapy Centre
Visionphysiotherapy Centre
Articles: 79